Thursday, April 30, 2020

ইবাদতের মাস রমজান: ইবাদতের শরয়ী মানদন্ড



।। প্রফেসর ডক্টর সৈয়দ মাকসুদুর রহমান।।

ভুমিকা:
ইবাদাত শব্দের আভিধানিক অর্থ হলো:- চূড়ান্ত বিনয়, আনুগত্য ও বশ্যতা।
أصل العبادة في اللغة: الطاعة والخضوع والتذلل كما قال الجوهري وغيره.
 শারীআতের পরিভাষায়:- প্রকাশ্য কিংবা গোপনীয় যতসব কথা ও কাজ আল্লাহ  তাআলা ভালোবাসেন ও পছন্দ করেন, সে সবের একটি সামষ্টিক নাম হলো ইবাদাত’। আলোচ্য বিষয়ে অনেক রেফারেন্স এর অনুবাদ করা হয়নি। অনেক এর কারণ পরিসর যেন দীর্ঘ না হয। এ ছাড়া যে রেফারেন্স খুবই শক্তিশালী সেগুলো নম্বর প্রদান করা হয়েনি। পাঠকগণ আশা করি বুঝতে পারবেন।
العبادة في الشريعة الإسلامية هي الهدف الأساسي من خلق الإنسان، ففي القرآن الكريم كتاب الله المنزل رحمة للعالمين، يقول الله:«وما خلقت الجن والإنس إلا ليعبدون»، وعلى هذا فإن العبادة تشمل كل الأعمال الصالحة التي يحبها الله وترضيه، والاتصاف بكل الصفات والأخلاق الحميدة، وكذلك حب الله والرسول والصالحين، ومعاملة الناس معاملة حسنة، مما يجعل الإنسان المسلم في عبادة طوال حياته وفي جميع تصرفاته كما جاء في القرآن الكريم: ﴿قُلْ إِنَّ صَلاَتِي وَنُسُكِي وَمَحْيَايَ وَمَمَاتِي لِلّهِ رَبِّ الْعَالَمِينَ * لاَ شَرِيكَ لَهُ وَبِذَلِكَ أُمِرْتُ وَأَنَاْ أَوَّلُ الْمُسْلِمِينَ-
তাই যতসব কথা-বার্তা ও কাজ-কর্মকে আল্লাহ তাআলা পছন্দ করেন, যেমন:- সালাত (নামায) ক্বায়িম করা, সিয়াম (রোযা) পালন করা, ক্বোরবানী, নয্‌র-মানত প্রদান করা, সাদাক্বাহ, যাকাত প্রদান করা, আল্লাহ্‌র নিকট প্রার্থনা (দুআ) করা, আল্লাহ্‌কে ডাকা, আল্লাহ্‌র প্রতি ভয় ও আশা পোষণ করা, আল্লাহ্‌ তাআলার উপর ভরসা করা, আল্লাহ্‌র তাছবীহ্‌ (মহিমা), তাহ্‌মীদ (প্রশংসা), তাকবীর (মহত্ব), তাহ্‌লীল (আল্লাহ্‌র একত্ব) বর্ণনা করা, কুরআন কারীম তিলাওয়াত করা, কুরআন ও সুন্নাহ্‌তে বর্ণিত ও নির্দেশিত দুআ ও যিকর-আযকার করা, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রতি সালাত ও সালাম পাঠ করা ইত্যাদি, এ সব প্রতিটি কাজ হলো একেকটি ইবাদাত। রাসূলুললাহ সাল্লাল্লাহু আলাআইহি ওয়াসাল্লাম অনুসৃত ও প্রদর্শিত পন্থানুযায়ী একমাত্র আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের উদ্দেশ্যে, তাঁরই (আল্লাহ্‌র) সন্তুষ্টি লাভের নিমিত্তে, তাঁর (আল্লাহ্‌র) প্রতি শ্রদ্ধাপূর্ণ ভয় ও সর্বোচ্চ ভালোবাসা নিয়ে, তাঁর প্রতি পূর্ণ বশ্যতা ও আনুগত্য প্রদর্শন পূর্বক তাঁর (আল্লাহ্‌র) মহত্বের সম্মুখে অবনত মস্তকে চূড়ান্ত বিনয়ের সাথে সাওয়াবের (আল্লাহ্‌র নিকট উত্তম প্রতিদান লাভের) আগ্রহ ও সুদৃঢ় আশা নিয়ে উপরোক্ত যে কোন কর্ম সম্পাদন করাকে আল্লাহ্‌র ইবাদাত বলা হয়। ইবন তাইমিযা রহ, বলেন-
  يقول ابن تيمية في رسالته "العبودية": «العبادة هي اسم جامع لكل ما يحبه الله ويرضاه من الأقوال والأعمال الباطنة والظاهرة فالصلاة والزكاة والصيام والحج وصدق الحديث والأمانة وبر الوالدين وصلة الأرحام والوفاء بالعهود والأمر بالمعروف والنهي عن المنكر والجهاد للكفار والمنافقين والإحسان للجار واليتيم والمسكين وابن السبيل والمملوك من الآدميين والبهائم والدعاء والذكر والقراءة وأمثال ذلك من العبادة. وكذلك حب الله ورسوله وخشية الله والإنابة إليه وإخلاص الدين له والصبر لحكمه والشكر لنعمه والرضى بقضائه والتوكل عليه والرجاء لرحمته والخوف من عذابه وأمثال ذلك هي من العبادة لله.
আল্লাহ পছন্দ করেন এমন যেকোন কথা বা কাজ করাকে ইবাদত বলে। চাই তা প্রকাশ্যে হউক বা গোপনে হউক।
   وَقَالَ رَبُّكُمُ ادْعُونِي أَسْتَجِبْ لَكُمْ ۚ إِنَّ الَّذِينَ يَسْتَكْبِرُونَ عَنْ عِبَادَتِي سَيَدْخُلُونَ جَهَنَّمَ دَاخِرِينَ-
আর তোমাদের রব বলেছেন, 'তোমরা আমাকে ডাক, আমি তোমাদের ডাকে সাড়া দেব। নিশ্চয় যারা অহংকারবশে আমার 'ইবাদাত থেকে বিমুখ থাকে, তারা অচিরেই জাহান্নামে প্রবেশ করবে লাঞ্ছিত হয়ে (সূরা গাফের -৬০)
  وَإِذَا سَأَلَكَ عِبَادِي عَنِّي فَإِنِّي قَرِيبٌ أُجِيبُ دَعْوَةَ الدَّاعِ إِذَا دَعَانِ فَلْيَسْتَجِيبُواْ لِي وَلْيُؤْمِنُواْ بِي لَعَلَّهُمْ يَرْشُدُونَ-
আর আমার বান্দারা যখন তোমার কাছে জিজ্ঞেস করে আমার ব্যাপারে বস্তুতঃ আমি রয়েছি সন্নিকটে। যারা প্রার্থনা করে, তাদের প্রার্থনা কবুল করে নেই, যখন আমার কাছে প্রার্থনা করে। কাজেই আমার হুকুম মান্য করা এবং আমার প্রতি নিঃসংশয়ে বিশ্বাস করা তাদের একান্ত কর্তব্য। যাতে তারা সৎপথে আসতে পারে-
وقال   ، وقال صلى الله عليه وسلم ” الدعاء هو العبادة ”          
- - - - - - - - - - 1----11---1صلى الله عليه وسلم :” أفضل العبادة قال الدعاء” وقال قال صلى الله عليه وسلم ” ليس من شئ أكرم على الله تعالى من الدعاء” وقال صلى الله عليه وسلم ” إن ربكم تبارك وتعالى حي كريم يستحي من عبده إذا رفع يداه إليه أن يردهما صفراً خائبين “. وقال صلى الله عليه وسلم :” لا يرد القضاء إلا الدعاء ، ولا يزيد في العمر إلا البر “. وقال صلى الله عليه وسلم :” ما من مسلم يدعو الله بدعوةليس فيها إثم ولا قطيعة رحم إلا أعطاه الله بها إحدى ثلاث : إما أن تعجل له دعوته ، وإما أن يدخرها له في الآخرة ، وإما أن يصرف عنه من السوء مثلها “. قالوا : إذاً نكثر الدعاء ، قال : ” الله أكثر”. وقال صلى الله عليه وسلم :” إنه من لم يسأل الله تعالى يغضب عليه “. وقال صلى الله عليه وسلم :” أعجز الناس من عجز عن الدعاء ، وأبخل الناس
দূআ করার অনেক শর্ত আছে সকল বক্তব্যের মূল কথা হলো -
أن يبدأ لحمد الله والثناء عليه ، ثم بالصلاة على النبي صلى الله عليه وسلم ويختم بذلك        -
আল্লাহ তাআলা প্রশংসা দ্বারা আরম্ভ করবে এবং রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর উপরে দুরুদ ও সালাম পেশ করবে।
الجزم في الدعاء واليقين بالإجابة.
(আল্লাহ তাআলা দূআ কবুল করবেন যেন এই বিশ্বাস রাখবে)
الإلحاح في الدعاء وعدم الاستعجال
(আস্তে করবে দ্রুত করবে না।)
حضور القلب في الدعاء.
(হুদুরে কাল্ব থাকবে)
الدعاء في الرخاء والشدة.
(আশা ও নিরাশা উভয় থাকবে)
لا يسأل إلا الله وحده. عدم الدعاء على الأهل ، والمال ، والولد ، والنفس. خفض الصوت بالدعاء بين المخافتة والجهر. الاعتراف بالذنب ، والاستغفار منه ، والاعتراف بالنعمة ، وشكر الله عليها. تحري أوقات الإجابة والمبادرة لاغتنام الأحوال والأوضاع والأماكن التي هي من مظان إجابة الدعاء.
عدم تكلف السجع في الدعاء.

التضرع والخشوع والرغبة والرهبة. كثرة الأعمال الصالحة، فإنها سبب عظيم في إجابة الدعاء. رد المظالم مع التوبة. الدعاء ثلاثاً. استقبال القبلة. رفع الأيدي في الدعاء. الوضوء قبل الدعاء إذا تيسر.
أن لا يعتدي عي الدعاء. أن يبدأ الداعي بنفسه إذا دعا لغيره. أن يتوسل إلى الله بأسمائه اعيب يواد حرامنى وصفاته العلي ، أو بعمل صالح قام به الداعي نفسه ، أو بدعاء رجل صالح له. التقرب إلى الله بكثرة النوافل بعد الفرائض ، وهذا من أعظم أسباب إجابة الدعاء. أن يكون المطعم والمشرب والملبس من حلال. لا يدعو بإثم أو قطيعة رحم.

أن يدعو لإخوانه المؤمنين ، ويحسن به أن يخص الوالدان والعلماء والصالحون والعباد بالدعاء ، وأن يخص بالدعاء من في صلاحهم صلاح للمسلمين كأولياء الأمور وغيرهم ، ويدعو للمستضعفين والمظلومين من المسلمين. أن يسأل الله كل صغيرة وكبيرة. أن يأمر بالمعروف وينهى عن المنكر. الابتعاد عن جميع المعاصي) من بخل بالسلام
দূআ করার উত্তম সময় হলো লাইলাতুল কদর গভীর রজনীতে অথবা শেয রাতে
 أوقات وأحوال وأماكن وأوضاع يستحب فيها الدعاء ليلة القدر. جوف الليل الآخر ووقت السحر.
دبر الصلوات المكتوبات ( الفرائض الخمس.
ফরয সালাতের পর
بين الأذان والإقامة.
আযান এবং ইকামতের মধ্যে সময়
ساعة من كل ليلة.
প্রতি রাতে কিছু সময়
عند النداء للصلوات المكتوبات.  عند نزول الغيث. عند زحف الصفوف في سبيل الله. ساعة من يوم الجمعة ، وهي على الأرجح آخر ساعة من ساعات العصر قبل الغروب.
মাগরিব নামাযের পূর্বে   পানি পান করার পূর্বে।
عند شرب ماء زمزم مع النية الصادقة.
 
ইবাদত এর প্রকারভেদ: ইবাদত ৫ প্রকার:
১. অন্তরের মাধ্যমে ইবাদত। যেমনঃ ঈমান, নিয়ত, আল্লাহকে ভয় করা, আশা করা, ভালোবাসা ঘৃণা করা।
. ভাষাগত ইবাদত। যেমনঃ তিলাওয়াত, যিকির, দোয়া, মোনাজাত।
৩. কর্মগত  বা শারীরিক ইবাদত। যেমনঃ সালাত (নামাজ) সিয়াম (রোযা )
. আর্থিক ইবাদত। যেমনঃ যাকাত, কুরবানী, সাদাকা, ফিতরা, মানত, হাদিয়া, আকিকা।
. এমন ইবাদত যাতে সকল বৈশিষ্ট্য আবশ্যক। যেমন-হজ্জ ও ওমরা এবং জিহাদ।
يقول محمد البهي عميد كلية أصول الدين بجامعة الأزهر سابقا:«تستهدف العبادات من  الصلاة، الزكاة، الحج والجهاد في سبيل الله تصفية النفس الإنسانية والحيلولة بينها وبين اتباع الشرك والوثنية، وكذلك بينها وبين مباشرة الجرائم الاجتماعية من الفواحش والمنكرات التي هي الزنا وهتك العرض، وسرقة الأموال، وقتل النفس التي حرم الله قتلها إلا بالحق. تستهدف هذه العبادات كذلك ـ بجانب الحيلولة دون هذا كله ـ الحد من أنانية الذات في السلوك والتصرفات، وتقوية الإحساس الجماعي بالآخرين في المجتمع. حتى يخرج العابد عن طريق عبادته من دائرة الذات في نشاطه وأثر هذا النشاط في الانتفاع بما في هذه الدنيا من متع مادية، إلي دائرة المجتمع أو الأمة أو الآخرين. فما يصيبه من أرزاق فهو له وللآخرين، وما يقع من مآس فعليه كما على الآخرين.
আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন-
قُلْ إِنَّ صَلاَتِي وَنُسُكِي وَمَحْيَايَ وَمَمَاتِي لِلّهِ رَبِّ الْعَالَمِينَ
আপনি বলুনঃ আমার নামায, আমার কুরবানী এবং আমার জীবন ও মরণ বিশ্ব-প্রতিপালক আল্লাহরই জন্যে। (সূরা আনআমঃ আয়াত ১৬২)

ইবাদতের মানদন্ড:
يقول الله عز وجل في كتابه العظيم يَا أَيُّهَا النَّاسُ اعْبُدُواْ رَبَّكُمُ الَّذِي خَلَقَكُمْ وَالَّذِينَ مِن قَبْلِكُمْ لَعَلَّكُمْ تَتَّقُونَ
হে মানব সমাজ! তোমরা তোমাদের পালনকর্তার এবাদত কর, যিনি তোমাদিগকে এবং তোমাদের পূর্ববর্তীদিগকে সৃষ্টি করেছেন। তাতে আশা করা যায়, তোমরা পরহেযগারী অর্জন করতে পারবে। (সুরা বাকারা ২:২১)
 يَا أَيُّهَا النَّاسُ اعْبُدُوا رَبَّكُمُ الَّذِي خَلَقَكُمْ وَالَّذِينَ مِنْ قَبْلِكُمْ لَعَلَّكُمْ تَتَّقُون ويقول سبحانه : يَا أَيُّهَا النَّاسُ اتَّقُوا رَبَّكُمُ الَّذِي خَلَقَكُمْ مِنْ نَفْسٍ وَاحِدَةٍ وَخَلَقَ مِنْهَا زَوْجَهَا وَبَثَّ مِنْهُمَا رِجَالًا كَثِيرًا وَنِسَاءً وَاتَّقُوا اللَّهَ الَّذِي تَسَاءَلُونَ بِهِ وَالْأَرْحَامَ إِنَّ اللَّهَ كَانَ عَلَيْكُمْ رَقِيبًا

 ويقول عز وجل : وَمَا خَلَقْتُ الْجِنَّ وَالْإِنْسَ إِل زفَيبا مَا أُرِيدُ مِنْهُمْ مِنْ رِزْقٍ وَمَا أُرِيدُ أَنْ يُطْعِمُونِ إِنَّ اللَّهَ هُوَ الرَّزَّاقُ ذُو الْقُوَّةِ الْمَتِينُ ويقول سبحانه وتعالى يَا يُّهَا النَّاسُ اتَّقُوا رَبَّكُمْ إِنَّ زَلْزَلَةَ السَّاعَةِ شَيْءٌ عَظِيمٌ[4] ويقول سبحانه وتعالى : يَا أَيُّهَا النَّاسُ إِنَّا خَلَقْنَاكُمْ مِنْ ذَكَرٍ وَأُنْثَى وَجَعَلْنَاكُمْ شُعُوبًا وَقَبَائِلَ لِتَعَارَفُوا إِنَّ أَكْرَمَكُمْ عِنْدَ اللَّهِ أَتْقَاكُمْ إِنَّ اللَّهَ عَلِيمٌ خَبِيرٌ والآيات في هذا المعنى كثيرة في كتاب الله عز وجل وقد أرسل سبحانه الرسل عليهم الصلاة والسلام من أولهم نوح إلى آخرهم وخاتمهم نبينا محمد عليهم الصلاة والسلام أرسلهم جميعا ليدعوا الناس إلى توحيد الله وطاعته وتقواه ولينذروهم الشرك به وعبادة غيره ومعصية أوامره

كما قال سبحانه : وَلَقَدْ بَعَثْنَا فِي كُلِّ أُمَّةٍ رَسُولًا أَنِ اُعْبُدُوا اللَّهَ وَاجْتَنِبُوا الطَّاغُوتَ ويقول سبحانه : وَمَا أَرْسَلْنَا مِنْ قَبْلِكَ مِنْ رَسُولٍ إِلا نُوحِي إِلَيْهِ أَنَّهُ لا إِلَهَ إِلا أَنَا فَاعْبُدُونِفالله سبحانه خلقنا جميعا رجالا ونساء جنا وإنسا حكاما ومحكومين عربا وعجما لنعبد الله وحده ونتقيه سبحانه فيما نأتي ونذر ونحاسب أنفسنا في ذلك حتى نستقيم على توحيد الله وطاعته والمسارعة إلى ما أوجب علينا وترك ما نهانا عنه سبحانه وتعالى فالواجب على كل ذكر وأنثى من المكلفين أن يعبد الله ويتقيه سبحانه وتعالى أينما كان . لأنه خلق لهذا الأمر وأمر به من جهة الله سبحانه في كتبه ثم من جهة الرسل عليهم الصلاة والسلام فعلى جميع المكلفين من ذكور وإناث وعرب وعجم وجن وإنس أن يعبدوا الله ويتقوه ويلتزموا بالإسلام . كما أن على المسلمين الذين من الله عليهم بالإسلام أن يستقيموا على دينهم وأن يثبتوا عليه وأن يتفقهوا فيه حتى يؤدوا ما أوجب الله عليهم على بصيرة وحتى يتركوا ما حرم الله عليهم على بصيرة وعلى أهل العلم أينما كانوا أن يدعوا إلى الله وأن يفقهوا الناس في دين الله .

لأنهم خلفاء الرسل عليهم الصلاة والسلام والرسل بعثوا ليعلموا الناس ويرشدوهم ويدعوهم إلى الحق وينذروهم من الشرك بالله ومن سائر المعاصي وعلى علماء الإسلام أينما كانوا في جميع أقطار الأرض عليهم أن يعلموا الناس وأن يبلغوا الناس دينهم وأن يشرحوا لهم ما قد يخفى عليهم طاعة لله ولرسوله وأداء لواجب النصيحة وتبليغا لرسالة الله التي بعث بها نبيه محمدا عليه الصلاة والسلام . وعلى المدعوين المبلغين أن يستجيبوا لأمر الله ورسوله وأن يتفقهوا في دينهم ويسألوا عما أشكل عليهم وأن يعبدوا الله وحده بالإخلاص له سبحانه وتعالى كما قال عز وجل :  حُنَفَاءَأَيُّهَا النَّاسُ اتَّقُوا رَبَّكُمْ إِنَّ زَلْزَلَةَ السَّاعَةِ شَيْءٌ عَظِيمٌ22.1وَمَا أُمِرُوا إِلا لِيَعْبُدُوا اللَّهَ مُخْلِصِينَ لَهُ الدِّينَ-
আর তাদেরকে কেবল এ নির্দেশই প্রদান করা হয়েছিল যে, তারা যেন আল্লাহর ইবাদত করে তাঁরই জন্য দ্বীনকে একনিষ্ঠ করে এবং সালাত কায়েম করে ও যাকাত প্ৰদান করে। আর এটাই সঠিক দ্বীন (আল বাইয়্যিনাহ, আয়াত: ৫)
কুরআন ও সুন্নাহ আলোকে ইবাদতের মানদন্ড হবে নিমনরুপ :
يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُواْ أَطِيعُواْ اللّهَ وَأَطِيعُواْ الرَّسُولَ وَأُوْلِي الأَمْرِ مِنكُمْ فَإِن تَنَازَعْتُمْ فِي شَيْءٍ فَرُدُّوهُ إِلَى اللّهِ وَالرَّسُولِ إِن كُنتُمْ تُؤْمِنُونَ بِاللّهِ وَالْيَوْمِ الآخِرِ ذَلِكَ خَيْرٌ وَأَحْسَنُ تَأْوِيلاً-
হে ঈমানদারগণ! আল্লাহর নির্দেশ মান্য কর, নির্দেশ মান্য কর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর এবং তোমাদের মধ্যে যারা বিচারক তাদের। তারপর যদি তোমরা কোন বিষয়ে বিবাদে প্রবৃত্ত হয়ে পড়, তাহলে তা আল্লাহ ও তাঁর রসূলের প্রতি প্রত্যর্পণ কর-যদি তোমরা আল্লাহ ও কেয়ামত দিবসের উপর বিশ্বাসী হয়ে থাক। আর এটাই কল্যাণকর এবং পরিণতির দিক দিয়ে উত্তম।  (সূরা নিসা: আয়াত ৫৯) 
আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন.
مَّنْ يُطِعِ الرَّسُولَ فَقَدْ أَطَاعَ اللّهَ وَمَن تَوَلَّى فَمَا أَرْسَلْنَاكَ عَلَيْهِمْ حَفِيظًا-
যে লোক রসূলের হুকুম মান্য করবে সে আল্লাহরই হুকুম মান্য করল। আর যে লোক বিমুখতা অবলম্বন করল, আমি আপনাকে (হে মুহাম্মদ), তাদের জন্য রক্ষণাবেক্ষণকারী নিযুক্ত করে পাঠাইনি। (সূরা নিসা, আয়াত :80)
قل يا أيها الرسول للناس إن كنتم تحبون الله صادقين فاتبعوني يحببكم الله فمن أحب الله صادقا وأحب رسوله صادقا فالواجب عليه اتباع محمد صلى الله عليه وسلم السيد فيما جاء به من فعل الأوامر وترك النواهي وعلى رأسها توحيد الله والإخلاص له وترك الإشراك به ثم إقام الصلوات الخمس والمحافظة عليها في أوقاتها الرجل يؤديها في الجماعة والمرأة تؤديها في بيتها كما أمر الله بذلك بخشوع واستقامة وطمأنينة في قيامها وركوعها وسجودها وبين السجدتين وحين الارتفاع من الركوع يؤديها المؤمن والمؤمنة كما أمر الله عز وجل .

وفي الصحيحين أن رجلا دخل المسجد - مسجد الرسول صلى الله عليه وسلم في المدينة والنبي صلى الله عليه وسلم جالس في أصحابه فصلى ولم يتم صلاته ثم جاء فسلم على النبي صلى الله عليه وسلم فرد عليه السلام عليه الصلاة والسلام وقال له عليه الصلاة والسلام ((ارجع فصل فإنك لم تصل)) فرجع فصلى كما صلى فعلها ثلاث مرات كلما جاء سلم ورد عليه النبي السلام وقال له ((ارجع فصل فإنك لم تصل)) فقال الرجل في الثالثة (والذي بعثك بالحق نبيا ما أحسن غير هذا فعلمني) فقال له النبي صلى الله عليه وسلم ((إذا قمت إلى الصلاة فأسبغ الوضوء ثم استقبل القبلة فكبر ثم اقرأ ما تيسر معك من القرآن)) وفي اللفظ الآخر : ((ثم اقرأ بأم القرآن وبما شاء الله ثم اركع حتى تطمئن-
বলুন, যদি তোমরা আল্লাহকে ভালোবাস তাহলে আমাকে অনুসরণ কর, যাতে আল্লাহ্ ও তোমাদিগকে ভালবাসেন এবং তোমাদিগকে তোমাদের পাপ মার্জনা করে দেন। আর আল্লাহ্ হলেন ক্ষমাকারী দয়ালু। (সূরা ইমরান,আয়াত ৩১) 

হালাল খাদ্য আল্লাহ তাআলা নিয়ামত। তিনি মানুষকে হালাল খাদ্য গ্রহণের তাঁর এ নিয়ামতকে ভুলে না যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। আল্লাহ তাআলা মানুষকে হালাল খাদ্য গ্রহণের নির্দেশ দিয়ে বলেন, ‘হে মানব জাতি! তোমরা পৃথিবীর দ্রব্য-সামগ্রী থেকে হালাল বস্তু আহার কর এবং (কখনও) শয়তানের অনুসরন করো না। নিশ্চয় সে (শয়তান) তোমাদের প্রকাশ্য দুশমন।’ (সুরা বাক্বারা : আয়াত ১৬৮)
عن أبي هريرة رضي الله عنه قال: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: " أيها الناس , إن الله طيب لا يقبل إلا طيبا، وإن الله أمر المؤمنين بما أمر به المرسلين , فقال: {يأيها الرسل كلوا من الطيبات واعملوا صالحا، إني بما تعملون عليم}  وقال: {يأيها الذين آمنوا كلوا من طيبات ما رزقناكم}  ثم ذكر رسول الله صلى الله عليه وسلم الرجل، يطيل السفر  أشعث أغبر، يمد يديه إلى السماء: يا رب، يا رب، ومطعمه حرام، ومشربه حرام، وملبسه حرام , وغذي بالحرام , فأنى يستجاب لذلك "  عن طريف أبي تميمة قال: شهدت جندب بن عبد الله البجلي رضي الله عنه وهو يوصي صفوان بن محرز وأصحابه , فقالوا: أوصنا , فقال: سمعت رسول الله صلى الله عليه وسلم يقول: " إن أول ما ينتن من الإنسان بطنه , فمن استطاع أن لا يأكل إلا طيبا فليفعل "

الورع عن تناول ما فيه شبهة-
عن عبد الله بن مسعود رضي الله عنه قال: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: " خير دينكم الورع "
عن عائشة - رضي الله عنها - قالت: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: " ملاك الدين الورع "
عن أبي الحوراء السعدي قال: قلت للحسن بن علي - رضي الله عنهما -: ما حفظت من رسول الله صلى الله عليه وسلم؟ , قال: حفظت من رسول الله صلى الله عليه وسلم: " دع ما يريبك إلى ما لا يريبك فإن الصدق طمأنينة , وإن الكذب ريبة "

عن النعمان بن بشير رضي الله عنه قال: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: (" الحلال بين , والحرام بين   (وبينهما أمور مشتبهات  (لا يدري كثير من الناس أمن الحلال هي أم من الحرام)  (فمن اتقى الشبهات  استبرأ لدينه وعرضه  ومن وقع في الشبهات , وقع في الحرام "وفي رواية: (فمن ترك ما شبه عليه من الإثم , كان لما استبان أترك ومن اجترأ على ما يشك فيه من الإثم, أوشك أن يواقع ما استبان) (10) (كراع يرعى حول الحمى , يوشك أن)  (يرتع فيه)  (ألا وإن لكل ملك حمى , ألا إن حمى الله في أرضه محارمه  " وفي رواية : " اجعلوا بينكم وبين الحرام سترة من الحلال، من فعل ذلك استبرأ لعرضه ودينه، ومن أرتع فيه , كان كالمرتع إلى جنب الحمى , يوشك أن يقع فيه، وإن لكل ملك حمى، وإن حمى الله في الأرض محارمه "عن أبي قتادة رضي الله عنه قال: أتيت على رجل من أهل البادية , فقال البدوي: " أخذ بيدي رسول الله صلى الله عليه وسلم فجعل يعلمني مما علمه الله تبارك وتعالى , وقال: إنك لن تدع شيئا اتقاء الله - عز وجل - إلا أعطاك الله خيرا منه "

عن عمر بن الخطاب رضي الله عنه قال: إن آخر ما نزلت آية الربا , وإن رسول الله صلى الله عليه وسلم قبض ولم يفسرها لنا , فدعوا الربا والريبة.عن ابن عمر - رضي الله عنهما - قال: (خطب عمر على منبر رسول الله صلى الله عليه وسلم فحمد الله وأثنى عليه, ثم قال: أما بعد .. ثلاثة أشياء وددت أيها الناس أن رسول الله صلى الله عليه وسلم) (لم يفارقنا حتى يعهد إلينا)  (فيهن عهدا ننتهي إليه:)  (الجد والكلالة  وأبواب من أبواب الربا () هُوَ الَّذِي جَعَلَ لَكُمُ الْأَرْضَ ذَلُولًا فَامْشُوا فِي مَنَاكِبِهَا وَكُلُوا مِنْ رِزْقِهِ وَإِلَيْهِ النُّشُورُ) 67.15 
তিনিই তো তোমাদের জন্য যমীনকে সুগম করে দিয়েছেন, কাজেই তোমরা এর পথে-প্রান্তরে বিচরণ কর এবং তাঁর রিয্ক থেকে তোমরা আহার কর। আর তাঁর নিকটই পুনরুত্থান হালাল রিজিক বান্দার জন্য আল্লাহর পক্ষ থেকে অনেক বড় অনুগ্রহ। তিনি সৃষ্টি জগতে বান্দার জীবিকার ব্যাপারে ইরশাদ করেন, ‘তোমরা আমার অনুগ্রহের কথা কিন্তু ভুলে যেওনা যে, আমি তোমাদেরকে আহারের জন্যে এমন উত্তম খাদ্য হালাল করেছি যা অত্যন্ত সুস্বাদু; তোমরা আগ্রহের সঙ্গে তা আহার কর, সে সব খাদ্য তোমাদের দৈহিক বা মানসিক কোনো প্রকার ক্ষতি করে না।কুরআনের বিভিন্ন জায়গা আল্লাহ তাআলা হালাল খাদ্য গ্রহণের জন্য তাগিদ দিয়েছেন। হালাল খাদ্য গ্রহণের উপকারিতাও বর্ণনা করেছেন। হাদিসে কুদসিতে বিশ্বনবি বর্ণনা করেছেন, আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘আমি আমার বান্দার জন্য হালাল যে সব সম্পদ দান করেছি তা তাদের জন্য হালালও ঘোষণা করেছি; আমি আমার বান্দাদেরকে একত্ববাদের অনুসারী রূপেই সৃষ্টি করেছি; কিন্তু শয়তান তাদেরকে বিভ্রান্ত করেছে এবং আমার হালাল স্থির করা বস্তুকে হরাম করেছে।
রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হালাল খাবার গ্রহণের বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি হাদিস বর্ণনা করেছেন। হজরত সাদ বি আবি ওয়াক্কাস রাদিয়াল্লাহু আনহু দাঁড়িয়ে আরজ করলেন, ‘হে আল্লাহর রাসুল! আমার জন্যে এ দোয়া করুন, আল্লাহ তাআলা যেন আমার সমস্ত দোয়া কবুল করেন। এর জবাবে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, ‘সাদ! হালাল ও উত্তম খাদ্য আহার কর; তাহলে আল্লাহ তাআলা তোমার দোয়াসমূহ কবুল করবেন। শপথ সেই মহাপরাক্রমশালী আল্লাহ তাআলার, যার হাতে মুহাম্মাদ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)-এর প্রাণ। হারাম খাদ্য মানুষের উদরে প্রবেশ করলে তার কারণে চল্লিশ দিন পর্যন্ত সে ব্যক্তির দোয়া কবুল করা হয় না। যে রক্ত-মাংস হারাম দ্রব্য দ্বারা গঠিত তা দোজখে যাবে।

দুনিয়াতে মানুষের দৈনন্দিন জীবন-যাপনে অর্থ-সম্পদের প্রয়োজন অত্যাধিক। কিন্তু জীবন ধারণের প্রয়োজনে অবৈধভাবে উপার্জন ইসলাম কখনো সমর্থন করে না। বৈধভাবে জীবিকা উপার্জন কষ্টকর হলেও তা আল্লাহর কাছে অতিপ্রিয়।

অন্যায় ও অবৈধভাবে সম্পদের পাহাড় গড়তে হবে। সম্পদ পুঞ্জিভুত করতে যাচ্ছেতাই অন্যায় অপকর্ম করে বেড়াতে হবে। এ সব বিষয়ে আল্লাহ তাআলা খুব কঠোরভাবে হুশিয়ারি দিয়েছেন।

আল্লাহ তাআলা মানুষকে জীবিকা অর্জনের জন্য হালাল উপার্জনের নির্দেশ দিয়েছেন। এ বিষয়ে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদিসে বিস্তারিত বর্ণনা করেছেন। কারণ হালাল সম্পদ উপার্জন এবং জীবিকা ইবাদাত কবুলের পূর্বশর্ত।

দুনিয়াতে যেহেতু জীবন-যাপনে সম্পদের প্রয়োজন রয়েছে, তাই আল্লাহর বিধান মেনে বৈধভাবে আয়-উপার্জন করতে হবে। সম্পদ অর্জনের ভালোবাসা সম্পর্কে আল্লাহ তাআলা সুস্পষ্ট ভাষায় ইরশাদ করেন, ‘এবং তোমরা ধন-সম্পদকে প্রাণভরে ভালোবাস।’ (সুরা ফজর : আয়াত ২০)

এ কথা মনে রাখতে হবে যে, বৈধভাবে সম্পদ উপার্জন মুমিন-মুসলমানের একটি প্রশংসনীয় কাজ। হালাল উপায়ে সম্পদ অর্জনে আল্লাহ বলেন, ‘হে মানবমণ্ডলী, পৃথিবীর হালাল ও পবিত্র বস্তুসামগ্রী ভক্ষণ করো। আর শয়তানের পদাংক অনুসরণ করো না, নিঃসন্দেহে শয়তান তোমাদের প্রকাশ্য দুশমন।’ (সুরা বাক্বারা , আয়াত: ১৬৮)

পৃথিবীতে যত নবি-রাসুলগণের আগমন ঘটেছে, তাদের সবাই নিজ হাতে উপার্জন করেই জীবিকা নির্বাহ করেছেন। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘নিজ হাতে উপার্জিত খাবারই হচ্ছে সর্বোৎকৃষ্ট। আল্লাহর নবি হজরত দাউদ আলাইহিস সালাম নিজ হাতে উপার্জিত রিজিকই গ্রহণ করতেন।’ (বুখারি)

অন্যায় ও অবৈধ পন্থায় উপার্জনকে আল্লাহ ও তাঁর রাসুল হারাম বা নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছেন। কেননা অন্যায় পন্থা অবলম্বন করে উপার্জনে মানুষের সারা জীবনের ভালো কাজগুলো বরবাদ হয়ে যায়।

অন্যায় পথে অবৈধভাবে উপার্জনকারীকে আল্লাহ তাআলা তাঁর রহমত, রবকত ও মাগফিরাত থেকে বঞ্চিত করেন। তাদের আখিরাতের জীবন ধ্বংশে পর্যবশিত হয়। এমনকি হারাম উপার্জন ভক্ষণে মানুষের কোনো আমল-ইবাদাতও কবুল হয় না।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘হে সাদ! পবিত্র খাবার গ্রহণ করো, তবে তোমার দোয়া কবুল হবে। সেই সত্তার কসম, যার হাতে মুহাম্মদের প্রাণ। বান্দা যখন তার মুখে হারাম উপায়ে উপার্জিত কোনো খাবার গ্রহণ করে, আল্লাহ ৪০ দিন তার কোনো আমল কবুল করেন না। আর যে ব্যক্তি অবৈধ সম্পদ আর হারাম উপার্জিত অর্থে বেড়ে ওঠে, তার জন্য জাহান্নামের আগুনই উত্তম।

শুধু তাই নয়! অবৈধ জীবিকা দ্বারা যেমন ইবাদাত কবুল হবে না; তেমনি অবৈধ সম্পদ তথা সুদ, ঘুষ, চুরি, হারাম ব্যবসা-বাণিজ্যসহ যাবতীয় অন্যায় পথে উপার্জিত সম্পদের দান-অনুদানও আল্লাহর দরবারে কবুল হবে না।

কেননা বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘পবিত্রতা ছাড়া নামাজ আর চুরি ও আত্মসাতের সম্পদের সদকা কবুল হয় না।’ (মুসলিম)

অন্য হাদিসে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আরো ইরশাদ করেন, ‘একজন মানুষ লম্বা পথ সফর করে ক্লান্ত-পরিশ্রান্ত। এরপর সে না ঘুমিয়ে রাত জেগে নামাজ পড়ে এবং আল্লাহর জিকির করে দোয়া করে-

হে আল্লাহ! তুমি আমার গোনাহ মাফ করে দাও। কিন্তু তার খাদ্য হারাম, পানীয় হারাম, কাপড়-চোপড় হারামসহ তার সবকিছুই হারাম। সুতরাং ক্লান্ত-পরিশ্রান্ত শরীরে, না ঘুমিয়ে সে যত মনোযোগ সহকারেই দোয়া করুক না কেন, আল্লাহর দরবারে তা কবুল হবে না।’ (মিশকাত)

মুসলিম উম্মাহর উচিত- আয়-উপার্জনের ক্ষেত্রে সাবধান হওয়া। আল্লাহ তাআলার ওপর অগাধ আস্থা এবং বিশ্বাস রেখে উপার্জনে নেমে পড়া। তবেই আল্লাহ তাআলা উত্তম জীবিকা দান করবেন।
عن أبي ثعلبة الخشني رضي الله عنه عن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال : ( إِنَّ اللهَ فَرَضَ فَرَائِضَ فَلا تُضَيِّعُوهَا ، وَحَدَّ حُدُودًا فَلا تَعتدُوهَا ، وَحَرَّمَ أَشيَاءَ فَلا تَنتَهِكُوهَا ، وَسَكَتَ عَن أَشيَاءَ رَحمَةً لَكم مِن غَيرِ نِسيانٍ فَلا تَبحَثُوا عَنهَا
সর্বোপরি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সেই অমর কালজয়ী হাদিসটি সব সময় স্মরণ রাখা উচিত। আর তা হলো-পৃথিবীর কোনো প্রাণীই তার রিজিক শেষ হওয়ার পূর্বে মারা যাবে না। সুতরাং আল্লাহকে ভয় করো এবং উপার্জনের ক্ষেত্রে সৎপথ অবলম্বন করো। তাকদিরে লেখা রিজিক আসতে বিলম্ব হলেও অসৎ পথে উপার্জন করো না। আল্লাহর আনুগত্যের মাধ্যমেই আল্লাহর কাছ থেকে হালাল জীবিকা পাওয়া সম্ভব।’ (মিশকাত)
وقال عز وجل : وَمَنْ يَدْعُ مَعَ اللَّهِ إِلَهًا آخَرَ لا بُرْهَانَ لَهُ بِهِ فَإِنَّمَا حِسَابُهُ عِنْدَ رَبِّهِ إِنَّهُ لا يُفْلِحُ الْكَافِرُونَ وقال جل وعلا : ادْعُونِي أَسْتَجِبْ لَكُمْ وقال سبحانه : وَإِذَا سَأَلَكَ عِبَادِي عَنِّي فَإِنِّي قَرِيبٌ أُجِيبُ دَعْوَةَ الدَّاعِ إِذَا دَعَانِ فَلْيَسْتَجِيبُوا لِي وَلْيُؤْمِنُوا بِي لَعَلَّهُمْ يَرْشُدُونَ فالواجب على جميع المكلفين من الرجال والنساء من الجن والإنس من الحكام والمحكومين من العرب والعجم أن يعبدوا الله وحده وأن يستقيموا على معنى شهادة أن لا إله إلا الله فإن معناها لا معبود حق إلا الله وهو معنى قوله جل وعلا : وَمَا أُمِرُوا إِلا لِيَعْبُدُوا اللَّهَ مُخْلِصِينَ لَهُ الدِّينَ حُنَفَاءَ وقوله : إِيَّاكَ نَعْبُدُ وَإِيَّاكَ نَسْتَعِينُ هذا هو الواجب على جميع المكلفين في سائر الأرض من جن وإنس من الرجال والنساء أن يعبدوا الله وحده وهذا هو أصل دين الإسلام .

لأن أصل دين الإسلام هو الاستسلام لله بالتوحيد والإخلاص وترك الشرك والانقياد له بالطاعة وذلك بفعل الأوامر وترك النواهي هذا هو معنى الإسلام . قال الله سبحانه : إِنَّ الدِّينَ عِنْدَ اللَّهِ الْإِسْلامُ وقال سبحانه : وَمَنْ يَبْتَغِ غَيْرَ الْإِسْلامِ دِينًا فَلَنْ يُقْبَلَ مِنْهُ وَهُوَ فِي الْآخِرَةِ مِنَ الْخَاسِرِينَ ويقول جل وعلا : الْيَوْمَ أَكْمَلْتُ لَكُمْ دِينَكُمْ وَأَتْمَمْتُ عَلَيْكُمْ نِعْمَتِي وَرَضِيتُ لَكُمُ الْإِسْلامَ دِينًا نزلت هذه الآية يوم عرفة والنبي عليه الصلاة والسلام واقف بعرفة في حجة الوداع بيّن الله سبحانه فيها أنه أكمل الدين وأتم النعمة وأنه رضي لعباده الإسلام وهو توحيد الله والإخلاص له والذل بين يديه والانقياد لأوامره وترك مناهيه

আল্লাহ তাআলা র উদ্দেশ্য ব্যতীত অন্য কোন কারণে যতই ভালো লাগলো কাজ করা হোক তা ইবাদত হবে না। ইবাদত হবে একমাত্র আল্লাহ তাআলাকে খুশি করা। হযরত আলী রা, বলেন-
لقول علي بن أبي طالب : كفاني فخرًا أن تكون لي ربًا وكفاني عزًا أن أكون لك عبدًا، أنت لي كما أحب، فوفقني إلى ما تحب سبحانه وتعالى وعلى رأس ذلك إخلاص العبادة لله وحده وترك الإشراك به كما هو معنى لا إله إلا الله كما تقدم إذ معناها لا معبود حق إلا الله وهو معنى
আল্লাহ তাআলা ব্যতীত অন্য কারোর জন্য ইবাদত করা যাবে না। আল্লাহ তাআলা বলেন-
وَإِذَا تُتْلَىٰ عَلَيْهِمْ آيَاتُنَا بَيِّنَاتٍ قَالَ الَّذِينَ لَا يَرْجُونَ لِقَاءَنَا ائْتِ بِقُرْآنٍ غَيْرِ هَٰذَا أَوْ بَدِّلْهُ قُلْ مَا يَكُونُ لِي أَنْ أُبَدِّلَهُ مِن تِلْقَاءِ نَفْسِي إِنْ أَتَّبِعُ إِلَّا مَا يُوحَىٰ إِلَيَّ إِنِّي أَخَافُ إِنْ عَصَيْتُ رَبِّي عَذَابَ يَوْمٍ عَظِيمٍ -
আর যখন তাদের কাছে আমার প্রকৃষ্ট আয়াতসমূহ পাঠ করা হয়, তখন সে সমস্ত লোক বলে, যাদের আশা নেই আমার সাক্ষাতের, নিয়ে এসো কোন কোরআন এটি ছাড়া, অথবা একে পরিবর্তিত করে দাও। তাহলে বলে দাও, একে নিজের পক্ষ থেকে পরিবর্তিত করা আমার কাজ নয়। আমি সে নির্দেশেরই আনুগত্য করি, যা আমার কাছে আসে। আমি যদি স্বীয় পরওয়ারদেগারের নাফরমানী করি, তবে কঠিন দিবসের আযাবের ভয় করি।  (সুা হুদ, আয়াত:15)
قوله سبحانه : فَمَنْ يَكْفُرْ بِالطَّاغُوتِ وَيُؤْمِنْ بِاللَّهِ فَقَدِ اسْتَمْسَكَ بِالْعُرْوَةِ الْوُثْقَى لا انْفِصَامَ لَهَا وَاللَّهُ سَمِيعٌ عَلِيم 
অন্যত্রে আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন,
 وَمِنْهُم مَّن يَقُولُ ائْذَن لِّي وَلاَ تَفْتِنِّي أَلاَ فِي الْفِتْنَةِ سَقَطُواْ وَإِنَّ جَهَنَّمَ لَمُحِيطَةٌ بِالْكَافِرِينَ
আর তাদের কেউ বলে, আমাকে অব্যাহতি দিন এবং পথভ্রষ্ট করবেন না। শোনে রাখ, তারা তো পূর্ব থেকেই পথভ্রষ্ট এবং নিঃসন্দেহে জাহান্নাম এই কাফেরদের পরিবেষ্টন করে রয়েছে। (সুরা তাওবা, আয়াত:৪৯)
উপসংহার
ইসলামি শরীআতে আল্লাহ তাআলার সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে ব্যতীত অন্য কোন উদ্দেশ্য ইবাদত করলে ইবাদত কবুল হবে না। এর মাধ্যমে সাওযাব অর্জন করা অথবা জান্নাতে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই। সুতরাং আসুন, আমরা আমাদের সকল আমল আল্লাহ তাআলাকে খুশি করার জন্য করার জন্য করি। আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে তাঁর বিধান পালনের পাশাপাশি হালাল রিজিক উপার্জনের প্রশংসনীয় গুণের অধিকারী হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমীন ।
লেখকঃ
প্রফেসর,
আল হাদীস এন্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ,
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়,
কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ, বাংলাদেশ।


শেয়ার করুন

Author:

0 coment rios:

You can comment here